ওয়েব হোস্টিং, টিউটোরিয়াল

ডোমেইন এবং হোস্টিং কি ?

what-is-domain-hosting

ইন্টারনেট একটা বিশাল সমুদ্রের মত, জানা অজানা অনেক কিছুর খোজ মেলে প্রতিনিয়ত। টেকনিক্যাল ওয়ার্ল্ডে ডোমেইন এবং হোস্টিং (Domain and Hosting) গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। আজ আমরা আলোচনা করব ডোমেইন এবং হোস্টিং নিয়ে। আশা করি বিষয়টা পরিষ্কার ভাবে তুলে ধরতে সামর্থ্য হব।

 

ডোমেইন কি?
সহজ কথায় বললে কোন ওয়েবসাইটের নামই হচ্ছে ডোমেইন। ডোমেইন নেম অনেকটা মানুষের নামের মতই। ডোমেইন নেম এবং মানুষের নামের মধ্য পার্থক্য হচ্ছে মানুষের নাম ইউনিক নয় অর্থাৎ একটি নাম একাধিক মানুষের থাকে। কিন্তু ডোমেইন নেম সম্পূর্ণ ইউনিক অর্থাৎ একটি ডোমেইন পৃথিবীতে আর দ্বিতীয়টি নেই, ঠিক মোবাইল নাম্বারটাকে উদাহারন হিসেবে দেখতে পারেন, যেমন আপনার ফোন নাম্বারের সাথে আর কারো ফোন নাম্বারের হুবহু মিল নেই। ডোমেইন হচ্ছে একটি ওয়েবসাইট এর ঠিকানা। যার মাধ্যমে ব্যবহারকারী আপনার ওয়েবসাইটটি খুঁজে পাবে।

ডোমেইন কি তা সম্পর্কে আরো একটু জেনে নেয়া যাকঃ
ডোমেইন নেইম এ কমপক্ষে ৩ টি অক্ষর থাকতে হবে আর সর্বোচ্চ ৬৩ টি অক্ষর থাকতে পারবে। শুধু ইংরেজি অক্ষর, ০-৯ পর্যন্ত সংখ্যা আর “-” (হাইফেন) ডোমেইন নেইম এর ভেতর ব্যবহার করা যাবে।

টপ লেভেল ডোমেইনঃ .com, .net, .org, .info ইত্যাদি ডোমেইনকে টপ লেভেল ডোমেইন বলা হয়। (এসব ডোমেইন কিনতে হয়)

ফ্রী ডোমেইনঃ .blog.com, .xtgem.com, .blogspot.com .tk, .wordpress.com, .weebly.com ইত্যাদি ডোমেইনকে ফ্রী ডোমেইন বলা হয়। (এসব ডোমেইন ফ্রীতে পাওয়া যায়)

 

হোস্টিং কি?
এখন বলা যায় আপনি ডোমেইন কিনলেন আর আপনার কাজ শেষ। কিন্তু না, আপনি যদি একটি ডোমেইন কিনেন অবশ্যই তার জন্য একটি হোস্টিং কিনতে হবে। আপনি একটি ডোমেইন কিনলেন মানে ইন্টারনেটে আপনি একটি স্থান কিনলেন, এখন আপনার ডোমেইনটিকে ২৪/৭ অনলাইনে রাখতে হবে। এর জন্য দরকার আপনার হোস্টিং কোম্পানি। কোন তথ্যকে অন্যের কাছে তুলে ধরার সবচেয়ে জনপ্রিয় ও সহজ মাধ্যম হচ্ছে ওয়েবসাইট । আজকের কম্পিউটার ব্যবহারকারী মাত্রই ওয়েবসাইট সম্পর্কে অবগত আছেন । সহজ ভাষায় বলা যায়, ওয়েবসাইট হল আপনার তথ্যকে অন্যের সামনে উপস্থাপন করার রাস্তা- সেটা টেক্সট বা মাল্টিমিডিয়া (যেমনঃ ছবি, অডিও বা ভিডিও) যে কোন ধরনের হতে পারে। ওয়েবসাইটে সেগুলো সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা ওয়েব ডেভেলপারের কাজ। আর আপনার ওয়েবসাইটটি অন্যদের দেখার জন্য উপযোগী করাই ওয়েব হোস্টিং নামে পরিচিত।

আপনার ওয়েবসাইটটিকে যদি তুলনা করা হয় আপনার প্রতিষ্ঠানের অফিস বিল্ডিং হিসেবে, তবে তার তথ্য বা কনটেন্ট হবে এর আসবাবপত্র। আর ওয়েবসাইট ডেভেলপ করাকে তুলনা করা যাবে বাড়িটি তৈরি করার সাথে। সেক্ষেত্রে ওয়েবসাইট হোস্টিংকে তুলনা করা যায় আপনার অফিস বিল্ডিংয়ের জন্য জায়গা কেনা এবং সে জায়গায় বাড়িটি তৈরি করার সাথে। তবেই ভিজিটররা ওয়েবসাইটি ব্যবহার করার সুযোগ পাবে। কোন ওয়েব সাইট যে জায়গা জুড়ে থাকবে সেটাই ওই সাইটের হোস্টিং। আমরা দেখি যেকোন ওয়েব সাইট কিছু টেক্সট এবং মাল্টিমিডিয়া (Picture/Video) দিয়ে তৈরি হয়ে থাকে। এই গুলা যে জায়গা বা BIT দখল করে তাকে ওই সাইটের হোস্টিং।

বিষয়টি আরো সুন্দরভাবে বোঝার জন্য নিচের ভিডিওটি দেখুন…

ডোমেইন হোস্টিং সম্পর্কিত আরও নতুন নতুন আপডেট নিউজ জানতে টেকপেইজবিডি’র সাথেই থাকুন।

“ধন্যবাদ”

2 Comments

Kauser Ahmed

I am online Marketer.

2 Comments

  1. md pappu islam
    July 11, 2018 at 11:30 am

    Ow its a nice post. Thanks for sharing this type of Freelancing tips.
    I already bookmarking your site. You can also visit my Freelancing Blog for get some more information about Freelancing Tutorial .

    • Kauser Ahmed
      September 9, 2018 at 4:09 pm

      Welcome

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

15 + thirteen =