ফ্রিল্যান্সিং

গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কিত কিছু প্রশ্নের উত্তর

faq-of-adsense

আমরা গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে বেশ কিছু কমন প্রশ্ন শুনে থাকি। আজকের লেখায় থাকছে সেসব প্রশ্নগুলোর উত্তর এবং কিছু সমস্যার সমাধান। তো চলুন শুরু করা যাক।

গুগল অ্যাডসেন্স বিজ্ঞাপনের মাপ বা সাইজ কত হওয়া উচিত?
ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনের প্লেসমেন্টটাই আসলে মূল ব্যাপার। তবে, দেখা গেছে যে, ৩৩৬*২৮০ এবং ৩০০*২৫০ এই মাপগুলো সবচেয়ে বেশি কার্যকর। এই মাপে বিজ্ঞাপনগুলো অধিকাংশ স্ক্রিনের সাথে মানানসই হয় এবং রেটটাও মোটামুটি ভালোই পাওয়া যায়।

গুগল অ্যাডসেন্সে সব থেকে ভাল প্লেসমেন্ট কোনটি?
এটি সম্পূর্ণরূপে আপনার ওয়েবসাইটের লেআউটের উপর নির্ভর করে। বিজ্ঞাপনে বেশি ক্লিক পেতে চাইলে, আপনাকে অবশ্যই ওয়েবসাইটের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা গুলোতে অ্যাড বসাতে হবে। আমরা দেখেছি যে, পোস্ট কনটেন্টের উপরে থাকা বিজ্ঞাপনগুলোতে সবচেয়ে বেশি ক্লিক পাওয়া যায়। অনেকে ওয়ার্ডপ্রেসের floating widget এ অ্যাডসেন্স বসানোর ব্যাপারে বলে থাকেন, কারণ ওয়েবপেজের জন্য এটা খুবই গুরুত্বপুর্ণ একটি স্পেস।

আমরা দৃঢ়ভাবে বলছি যে, এটা করা উচিত নয়। কারণ এটি গুগল পরিষেবার শর্তাবলি(Google Terms of Service) দ্বারা অনুমোদিত নয়। আপনি যদি তাদের নীতিমালা লঙ্ঘন করেন, তাহলে গুগল কর্তৃপক্ষ আপনাকে তাদের অ্যাডসেন্স প্রোগ্রাম থেকে ব্যান করে দিতে পারে।

আমি কি নিজের গুগল অ্যাডসেন্স বিজ্ঞাপনগুলোতে ক্লিক করতে পারব?

অনেক নতুন ডেভেলপার আছেন যারা নিজের অ্যাডসেন্স বিজ্ঞাপনগুলোতে নিজেরাই ক্লিক করতে থাকেন এবং বন্ধু-বান্ধবসহ পরিবারের অন্য সদস্যদেরকে ক্লিক করতে প্রলুব্ধ করেন। দয়া করে আপনারা এই কাজটি করবেন না। কারণ গুগলের অ্যালগরিদম যথেষ্ট স্মার্ট এবং খুবই শক্তিশালী। এজন্য তারা খুব সহজেই এটা ধরে ফেলতে পারে যে, আপনি নিজেই নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিক করছেন। ফলস্বরূপ, আপনি তাদের অ্যাডসেন্স প্রোগ্রাম থেকে ব্যান হয়ে যেতে পারেন।

গুগল অ্যাডসেন্সে Page RPM কি?

RPM এর পুর্ণরূপ হচ্ছে Revenue per Mille। এর মানে হচ্ছে একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইটে বিজ্ঞাপনে ক্লিক বাদে শুধুমাত্র প্রতি ১০০০ বার পেজ ভিউ হলে কত ডলার দেওয়া হবে সেটি হিসেব করা হয়। এই হিসেবটি মূলত এভাবে, বিজ্ঞাপনের মোট ক্লিক সংখ্যাকে কস্ট পার ক্লিক(CPC) দিয়ে গুন করে মোট পেজ ভিউয়ের সংখ্যা দিয়ে ভাগ করা হয়। একারণে সবার RPM সমান হয় না।

ব্লগার বা ইউটিউব অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টটি ওয়ার্ডপ্রেসের ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যায় কিনা?

হ্যা, এটা করা যায়। আপনি যদি গুগল পরিচালিত প্ল্যাটফর্মগুলো যেমন ইউটিউব, ব্লগারে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করে থাকেন,  তাহলে সেই অ্যাকাউন্টের টাইপ পরিবর্তন খুব সহজেই ওয়ার্ডপ্রেসে এটি ব্যবহার করতে পারেন। এক্ষেত্রে, আপনি একটি অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম পূরণ করে যে সাইটটি মনিটাইজ করতে চান তার URL লিঙ্কসহ গুগল অ্যাডসেন্স দিতে হবে।

এজন্য আপনি আপনার অ্যাডসেন্স অ্যাকাউন্টে লগইন করে ‘My Ads’ এর নিচে ‘Other Products’ অপশনে ক্লিক করুন। এবার আপনাকে ‘Upgrade now’ বাটনে ক্লিক করে অ্যাপ্লিকেশনটি সম্পূর্ণ করতে হবে।

গুগল অ্যাডসেন্সে CTR কি?

CTR হলো Click Through Rate এর পূর্ণরূপ। এটা বিভিন্ন ওয়েবসাইটের জন্য বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। আপনার বিজ্ঞাপনের ক্লিক অনেকগুলো ফ্যাক্টরের উপর নির্ভর করবে, যেমন- আপনার ওয়েবসাইটের টপিক, আপনার ভিজিটরের ধরণ, আপনার সাইটে বিজ্ঞাপন বসানো এবং আরো অনেক কিছুর উপর। গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য আদর্শ CTR নির্ধারণ করাটা বেশ কঠিন, কারণ নিজস্ব সাইটের মত অন্যান্য ওয়েবসাইটের ক্লিক রেটের উপর আপনার কোন অ্যাক্সেস থাকে না।

যদি আপনার সাইটটি ভালো CTR না পায়, তাহলে গুগল অ্যাডসেন্সের বিল্ট-ইন টুলসগুলো আপনাকে বিভিন্ন মেসেজ দেখানো শুরু করবে। আয় বাড়ানোর জন্য গুগল অ্যাডসেন্স ড্যাশবোর্ডের ভেতরে দেখানো অপটিমাইজেশন গাইডটি অনুসরণ করতে পারেন।

কখন, কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স পেমেন্ট দেয়?

গুগল অ্যাডসেন্সের পেমেন্ট প্রতি মাসে একবার করা হয়। একমাস ধরে আপনার আয় জমা হতে থাকে, তারপর পরবর্তী মাসের শুরুতে আপনার সর্বমোট আয় হিসেব করা হয় এবং সেগুলো আপনার ‘Transactions’ পেজে দেখানো হয়। আপনার ব্যালেন্স যদি ‘পেমেন্ট থ্রেশহোল্ড’ এর চেয়ে বেশি হয় এবং আপনার যদি কোনও পেমেন্ট হোল্ড না থাকে তাহলে মাসের ২১ তারিখে নাগাদ আপনাকে পেমেন্ট ইস্যু করা হবে। মনে রাখবেন যে আপনি কবে পেমেন্ট পাবেন তার সঠিক সময় নির্ভর করে আপনি কি ধরনের পেমেন্ট বেছে নিয়েছেন তার উপর।

পেমেন্ট দেয়ার জন্য বেশ কিছু পদ্ধতি রয়েছে। যেমন- সরাসরি ইলেকট্রনিক স্থানান্তর, ওয়্যার ট্রান্সফার, চেক, ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন, এবং এছাড়া আরও একাধিক পেমেন্ট পদ্ধতি রয়েছে।

গুগল অ্যাডসেন্স আবেদন বাতিল করে দেয় কেন?

যদি আপনার ওয়েবসাইটটি অ্যাডসেন্স প্রোগ্রাম পলিসি অথবা তাদের শর্তাবলী পূরণ না করে, তাহলে গুগল অ্যাডসেন্স আপনার আবেদন বাতিল করে দিতে পারে

গুগল অ্যাডসেন্সে অনুমোদন পেতে কি কি প্রয়োজন?

গুগল অ্যাডসেন্সে অনুমোদন পেতে ন্যূনতম কিছু বিষয় আছে। সেগুলো হচ্ছে –

  • ওয়েবসাইট এবং এর সব কনটেন্টগুলোকে অবশ্যই AdSense Program Policies  এবং এর শর্তানুযায়ী হতে হবে।
  • ওয়েবসাইটের বয়স কমপক্ষে ৬ মাস হওয়া উচিত।
  • আবেদনকারীকে কমপক্ষে ১৮ বছর বয়সী হতে হবে।

নোট: আপনার আবেদনটি উপরোক্ত সব’কটি শর্ত পূরণ করলেও, গুগল অ্যাডসেন্স কর্তৃপক্ষ যেকোন সময়ে আপনার আবেদনটি বাতিল করার অধিকার সংরক্ষণ করে।

wordpress.com ব্লগে গুগল অ্যাডসেন্স যোগ করা যাবে কিনা?

আপনি wordpress.com ব্লগে সরাসরি গুগল অ্যাডসেন্স যুক্ত করতে পারবেন না। এজন্য আপনাকে ওয়ার্ডপ্রেসের  বিজনেস প্ল্যানে আপগ্রেড করতে হবে। এখানে লক্ষণীয় একটি বিষয় হচ্ছে যে, wordpress.com এবং wordpress.org দুটো সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। এটা নিয়ে পরবর্তীতে অন্য কোন পোস্টে আলোচনা করা হবে।

গুগল অ্যাডসেন্স ও ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আরো জানতে টেকপেজবিডি’র সাথেই থাকুন।

0 Comments

Ahmed Imran

There is nothing to say about myself

Reply your comment

Your email address will not be published. Required fields are marked*

eighteen + 9 =